বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১

গ্রামের কামার কুমোর ছুতার নাপিতদের উপার্জনের প্রথা কী ছিল সেই প্রথার বিরুদ্ধে অনিরুদ্ধ ও গিরিশ ছুতোররের বিদ্রোহের কারণ কি সেই বিদ্রোহের ফল কী হয়েছিল প্রশ্নোত্তর

 

বাংলা অনার্স সাম্মানিক গ্রামের কামার  কুমোর  ছুতার নাপিতদের উপার্জনের প্রথা কী ছিল সেই প্রথার বিরুদ্ধে অনিরুদ্ধ ও গিরিশ ছুতোররের বিদ্রোহের কারণ কি সেই বিদ্রোহের ফল কী হয়েছিল প্রশ্নোত্তর Bengali honours gonodebota gramer kamar kumor chutor napitder uparjoner protha ki chilo sei prothar biruddhe onirudho o girish chutorer bidroher karon ki sei bidroher fol ki hoyechilo
                     প্রশ্নের মান : ৫/৬


প্রশ্ন: গ্রামের কামার , কুমোর , ছুতার , নাপিতদের উপার্জনের প্রথা কী ছিল ? সেই প্রথার বিরুদ্ধে অনিরুদ্ধ ও গিরিশ ছুতোররের বিদ্রোহের কারণ কি ? সেই বিদ্রোহের ফল কী হয়েছিল ?




উত্তর:- মধ্য যুগ থেকে বিংশ শতাব্দীর মধ্য ভাগ পর্যন্ত গ্রাম বাংলায় কামার , কুমোর , ছুতার , নাপিতরা ধানের বিনিময়ে গ্রামের মানুষের কাজ করে দিত । চাষী প্রধান গ্রামে কামার ও ছুতোরের প্রয়োজন ছিল খুব বেশী । গরুর গাড়ীর চাকায় হাল পড়ানো , লাঙলের ফাল পাজানো , কাস্তে , বটি , দা , কুড়ুল , কোদাল , হাতা , খুন্তি বেরী ইত্যাদি প্রয়োজনের জিনিস গুলি সবই করে দিতে হত কামার কে । এর বিনিময়ে সে পেত হাল পিছু পাঁচশলি ধান । ছুতোরের প্রধান কাজ ছিল লাঙল তৈরী করে দেওয়া । এর জন্য হাল পিছু ছুতোর পেত তিন শলি ধান । তাও চাষীরা সময় মতো এই ধান পরিশোধ করতো না । বাকি রাখতো এবং না দেবারই চেষ্টা করত । কামার - ছুতোরদের সংসার যে কীভাবে চলত , তাঁর খোঁজ কেউ নিত না । তাই , অনিরুদ্ধ কামার আর গিরিশ ছুতোর বিদ্রোহী হয়ে উঠলো । তারা ধানের বিনিময়ে আর কারো কাজ করতে রাজি হল না নগদ টাকায় কাজ করবে । গ্রামের লোকের তাতে আগ্রহ না থাকায় অনিরুদ্ধ আর গিরিশ ময়ূরাক্ষী পেরিয়ে জংশন শহরে দোকান খুলে বসে । নগদ টাকার প্রতি তাদের আগ্রহ জন্মে । গ্রামের মানুষের কাজ না হওয়ায় তারা ক্রুদ্ধ হল । শ্রীহরি পালও লোকশান বশত , অনিরুধের প্রতি ক্রুদ্ধ হয়ে শত্রুতা সাধনে ব্রতী হন ।


[      ] শ্রীহরির শত্রুতার কারণেই একদিন অনিরুধের সংসার বিপর্যস্ত হয়ে গেল । তার দু বিঘে বাঁকুরির ধান চুরি হয়ে গেল । থানায় জানিয়েও কিছু হল না । একদিন অনিরুধ কে জেলখাটতেও যেতে হল । জেল থেকে ছাড়া পেলেও সে ঘরে ফিরল না ; কোথাও হারিয়ে গেল ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন