রবিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২১

পুরুরবার প্রতি ঊর্বশী পত্রের বিষয়বস্তু আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর

 

বাংলা অনার্স সাম্মানিক bengali honours পুরুরবার প্রতি ঊর্বশী পত্রের বিষয়বস্তু আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর purubar proti urbashi potrer bishoybostu alochona koro questions answer

উত্তর:- ঊর্বশী ও পুরুরবার প্রেম নিয়ে শতপথ ব্রাহ্মণের কাহিনীটি এরকম - সারা দিনে তিনবার পুরুরবা ঊর্বশী কে আলিঙ্গন করতে পারবেন , তবে ঊর্বশীর  ইচ্ছার বিরুদ্ধে রাজা পুরুরবা তাকে নিয়ে শয়ন করতে পারবেন না । পুরুরবা  যেন কোনোদিন নগ্নবেশে ঊর্বশীকে প্রদর্শন না করেন । তাহলে ঊর্বশীকে স্বর্গে ফিরিয়ে নিয়ে যাবার জন্য কৌশলের আশ্রয় নেন । গন্ধ বর্গণ রাত্রে গোপনে শয্যার পাশে দুটি মেশ শাবক বেঁধে রাখে এবং পরে সেটিকে  চুরি করে । চোর ধরবার জন্য ঊর্বশী রাজার ঘুম ভাঙ্গান , ঘুমের ঘোরে নগ্নরূপ ঊর্বশী দেখে ফেলেন এবং ঊর্বশী শাপমুক্ত হয়ে স্বর্গে ফিরে যান । পুরুরবার বিরহে কাতর হলে ঊর্বশী কথা দেন প্রতি বছরের শেষরাতে তিনি পুরুরবার সঙ্গে মিলিত হবেন । পাঁচ বছর এই ভাবে মিলনের ফলে তাঁদের পাঁচটি পুত্র সন্তান হয় ।




[      ] মহাকবি কালিদাসের “ বিক্রমোর্বশীয়ম ”  নাটকের কাহিনীটি একটু অন্যরকম । কেশী দৈত্য ঊর্বশীকে হরণ করলে পুরুরবা তাঁর উদ্ধার করেন । রাজার সৌজ বীর্য অভিভূত হন ঊর্বশী । স্বর্গে লক্ষ্মীর ভূমিকায় অভিনয়কালে ঊর্বশী কাকে বেশি ভালবাসেন তার উত্তরে পুরুষোত্তমের স্থানে পুরুরবার নাম উচ্চারণ করলে নাট্যচার্য ভরত তাঁকে অভিশাপ দেন মর্তে পুরুরবার পত্নী রূপে জীবন কাটাবার জন্য 



মধুসূদনের দত্তের “ পুরুরবার প্রতি ঊর্বশী ” পত্রে কালিদাসের কাহিনীর অনুসরণই চোখে পড়ে , পত্রের প্রথমেই ঊর্বশী তাই জানিয়েছেন -


      “ স্বর্গচূত্ত আজি , রাজা , তব হেতু আমি !


       গতরাত্রে অভিনিনু দেব নাট্যশালে 


        লক্ষ্মী স্বয়ম্বর নাম নাটক , বারুণী 


       সাজিল মেনকা , আমি অম্বোজা ইন্দিরা 


        কহিলা বারুণী , দেখ নিরখি চৌদিকে ,


        বিধুমুখী , দেবদল এই সভাতলে 

 

       বসিয়া কেশব ওই ! কহ মোরে , শুনি , 


       কার প্রতি ধায় মন: ? গুরুশিক্ষা ভুলি ,


       আপন মনের কথা দিয়া উত্তারনু ।


             রাজা পুরুরবার প্রতি !”




এই প্রেমানুরাগের কথা ঊর্বশী পুরুরবার পদ যুগলেও নিবেদন করতে চান , নিজেকে “ দাসী ” বলে সম্মোধন করে ঊর্বশী জানাতে চেয়েছেন স্বর্গের সুখ অপেক্ষা পুরুরবার সঙ্গ সুখ তাঁর কাছে অনেকবেশী প্রীয়তর ,



        “ যদি কৃপা কর ,


       তাও কহ: যাব উড়ি ও পদ আশ্রয়ে 


      পিঞ্জর ভাঙ্গিলে উড়ে বিহঙ্গিনি যথা 

  

     নিকুঞ্জে ! কি ছাড় স্বর্গ তোমার বিহনে ?”





পুরুরবার বীরত্ব , রসময় বাণী , ঊর্বশীকে উদ্ধার করার চিত্র এ সব কল্পনা করে আনন্দিত হন ঊর্বশী । স্বর্গের অপ্সরী হয়েও ঊর্বশী স্বীকার করেন পুরুরবার মতো রাজাকে পেয়ে “ নরকুল ধন্য ” । পুরুরবার মতো রাজার সৌন্দর্য , সৌয , সুভাষণে , মোহিত হয়ে আত্মসমর্পণের ভঙ্গিতে ঊর্বশী বলেন 



           “ সুরবালা মন তুমি ভুলালে সহজে , 


           নররাজ ! কেনই বা না ভুলাবে , কহ ?


             সুরপুর চির অরি অধীর বিক্রমে ,


           তোমার বিক্রমাদিত্য । বিধাতার ঘরে , 


             বজ্রীর অধিক বীর্যতব রণস্থলে ”




পুরুরবার সঙ্গে মিলনের জন্য ঊর্বশী “ কামবিষে ” জ্জ্বরিত হয়েছেন , পুরুরবার একবার আজ্ঞা দিলেই তিনি সুরপুর ত্যাগ করে রাজার চরণে আশ্রয় নেবেন , কল্পতরু বৃক্ষের কাছে নত হয়ে এইসব মনের কথা ঊর্বশী প্রকাশ করেছেন এবং পত্রাকারে তা লিপিবদ্ধ করেছেন । এই পত্র ঊর্বশী তাঁর প্রিয় সখী চিত্রলেখা মারফৎ পাঠিয়ে দিয়ে উত্তরের অপেক্ষায় পথ চেয়ে বসে আছেন ।



মধুসূদন অসামান্য দক্ষতায় স্বর্গের ঊর্বশী কে মর্ত্যের রক্ত মাংসের মানবী করে তুলেছেন । ভালোবাসার জন্য স্বর্গসুখও যে অনায়াসে ত্যাগ করা যায় ঊর্বশী সেই কথাটাই এই পত্রে আত্মপ্রত্যয়ের সঙ্গে ঘোষণা করেছেন ।




কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন