শনিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২১

পুঁইমাচা গল্পের সমকালের কোন সমাজ চিত্র ফুটে উঠেছে আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর

 

বাংলা অনার্স সাম্মানিক পুঁইমাচা গল্পের সমকালের কোন সমাজ চিত্র ফুটে উঠেছে আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর Bengali honours puimacha golper somokaler kon somaj chitro fute utheche alochona koro


প্রশ্ন: " পুঁইমাচা " গল্পের সমকালের কোন সমাজ চিত্র ফুটে উঠেছে ? আলোচনা করো ।


উত্তর:- বিভূতিভূষণের " পুঁইমাচা " গল্পে সমকালীন সমাজের কিছু চিত্র ফুটে উঠেছে । তখনকার সমাজে এগারো বারো বছর বয়সেই মেয়ের বিয়ে দিতে হতো । বিয়েতে পণ দেবের প্রথাও ছিল । দারিদ্র দারিদ্র্য বশত, কিংবা  পছন্দের পাত্র না জোটায় সময় মত মেয়ের বিয়ে না দিলে সমাজ তাকে ক্ষমা করতে না । একঘরে করত । সেই একঘরে হবার ভয়েই দরিদ্র অভিভাবকেরা মেয়ের বয়স যথাসম্ভব কমিয়ে বলতো । তাতেও বাঁচার উপায় না থাকলে অপাত্রে কন্যা  উৎসর্গ করতে দ্বিধা করত না  কন্যার পিতা মাতা । পুঁইমাচা গল্পে ক্ষেন্তির বয়স পনেরো হলেও তার অভিভাবকেরা বারো তেরো  বলে প্রচার করে । শেষ পর্যন্ত সমাজচ্যুত হবার ভয়েই দ্বিতীয় পক্ষের বুড়ো বরের সঙ্গে ক্ষেন্ত্রীর বিয়ে ঠিক হয় । পাত্রের বয়স এতটাই বেশি যে তার সামনে বের হতে অন্নপূর্ণার সংকোচ হয়েছে । এই বিয়েও সুখের হয়নি । পণের আড়াইশো টাকা বাকি ছিল বলে শ্বশুর ঘরে ক্ষেন্তি যত্ন ও মর্যাদা পায়নি । নানান অপবাদ মাথায় নিয়ে , বসন্তে আক্রান্ত হয়ে বছর না ঘুরতেই মারা গিয়েছে ।




[       ] গল্পে আরো কিছু সমাজ চিত্র ফুটে উঠেছে , তখনকার ব্রাহ্মণেরা দারিদ্র সত্ত্বেও কোনো উপাজনমূলক কাজ করতো না । কিন্তু পেটের দায়ে উচ্চবিত্ত করত । পরের জিনিস না বলে গ্রহণ করত । গল্পের সহায় হরি তাই করেছে । আর কিছু না থাকলেও বংশ গৌরব নিয়ে বড়াই করবার মানসিকতা ছিল ।



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন