বৃহস্পতিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১

স্ত্রীরপত্র অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

 


                   প্রশ্নের মান :- ১/২



১। " স্ত্রীরপত্র " গল্পটি কোন পত্রিকার কোন সংখ্যায় প্রকাশিত হয় ?


উত্তর:- " স্ত্রীরপত্র " গল্পটি " সবুজপত্র " পত্রিকার শ্রাবণ ১৩২১ সংখ্যায় প্রকাশিত হয় ।


২। " স্ত্রীরপত্র "  গল্পটিতে কে কাকে পত্র লিখেছে ?


উত্তর:- " স্ত্রীরপত্র " গল্পটিতে মৃণাল তার স্বামী কে পত্র লিখেছে ।


৩। " স্ত্রীরপত্র " কী জাতীয় গল্প ?


উত্তর:- " স্ত্রীরপত্র " পত্রাকারে লেখা সামাজিক গল্প ।


৪। " স্ত্রীরপত্র " গল্পের নায়িকা কে ?


উত্তর:- " স্ত্রীরপত্র " গল্পের নায়িকা মৃণাল ।


৫। মৃণালের বিবাহ হয়েছিল কত বছর আগে ?


উত্তর:- মৃণালের বিবাহ হয়েছিল পনেরো বছর আগে ।


৬। মৃণাল ইতিপূর্বে স্বামীকে পত্র লেখেনি কেন ?


উত্তর:- মৃণাল ইতিপূর্বে স্বামীর কাছেই ছিল , তাই চিঠি পত্র লেখার ফাঁকটুকু পাওয়া যায় নি ।


৭। মৃণাল কোথা থেকে স্বামীকে পত্র লিখেছিল ?


উত্তর:- মৃণাল শ্রীক্ষেত্র থেকে পত্র লিখেছিল ।


৮। কে বা কারা মৃণাল কে পাত্রী দেখতে গিয়েছিল ?


উত্তর:- মৃণালের স্বামীর মামা আর বন্ধু নীরদ পাত্রী দেখতে গিয়েছিলেন মৃণাল কে ।


৯। স্টেশন থেকে মৃণালের বাপের বাড়ীর দূরত্ব কত ?


উত্তর:- স্টেশন থেকে মৃণালের বাপের বাড়ীর দূরত্ব ১৭ মাইল ।


১০। মৃণালের বাপের বাড়ি যাবার উপায় কী ?


উত্তর:- মৃণালের বাপের বাড়ি যাবার উপায় স্টেশন থেকে সাত ক্রোশ শেকরা গাড়ীতে এবং বাকি তিন মাইল কাঁচা রাস্তায় পালকিতে যেতে হয় ।


১১। যাতায়াতের এত অসুবিধা থাকা সত্বেও মৃণালের শ্বশুর বাড়ির লোক মৃনাল কে পাত্রী নির্বাচন করেছিলেন কেন ?


উত্তর:- মৃনাল যথেষ্ঠ সুন্দরী ছিল । মৃনালের শাশুড়ি বড়ো বউয়ের রূপের অভাব মেজো বউকে দিয়ে পূরণ করবার জন্যই মৃনাল কে পাত্রী নির্বাচন করেন ।


১২। মৃনালের রূপের সঙ্গে আর কি ছিল ?


উত্তর:- মৃনালের রূপের সঙ্গে ছিল বুদ্ধি ।


১৩। মৃণালের কি নিয়ে তাঁর মা উদবিগ্ন ছিলেন কেন ?


উত্তর:- মৃণালের বুদ্ধিটা নিয়ে তার মা উদবিগ্ন ছিলেন । কারণ " মেয়ে মানুষের পক্ষে এ এক বালাই ।" 


১৪। বুদ্ধির জন্য মৃণালের শ্বশুর বাড়ির লোকেরা তাকে কি বলে গাল দিয়েছে ?


উত্তর:- বুদ্ধির জন্য মৃণাল কে তার শ্বশুর বাড়ির লোকেরা " মেয়ে জ্যাঠা " বলে দুবেলা গাল দিয়েছে ।


১৫। মৃণাল কীসের মধ্যে মুক্তি খুঁজে পেত ?


উত্তর:- মৃনাল তার লেখার মধ্যে মুক্তি খুঁজে পেত ।


১৬। মৃণালের কোন গুণের কথা তার শ্বশুর বাড়ির লোকেরা জানত না ?


উত্তর:- মৃণালের কবিত্ব গুণের কথা তার শ্বশুর বাড়ির লোকেরা জানত না ।


১৭। মৃণালের শ্বশুর বাড়ির গোয়ালে কটি গোরু ছিল ?


উত্তর:- মৃণালের শ্বশুর বাড়ির গোয়ালে দুটি গোরু আর তিনটি বাছুর ছিল ।


১৮। ইংরেজ ডাক্তার আঁতুড়ঘর দেখে বিরক্ত হয়ে বকাবকি করেছিলেন কেন ?


উত্তর:- মৃণালের শ্বশুর বাড়ি সচ্ছল হলেও কুসংস্কার তাদের ঘোচেনি । সেই সংস্কার অনুযায়ী শুচিতা রক্ষা করতে , ছোঁয়া বাঁচিয়ে যে স্থানে এবং যেভাবে আঁতুড়ঘর বানানো হত সেটা মা ও তাঁর সন্তানের পক্ষে স্বাস্থ্য কর হত না । সেজনেই  মৃণালের আঁতুড়ঘরে দেখে ইংরেজ ডাক্তার বিরক্ত হন ।


১৯। মৃণালের বড়ো জায়ের বোনের নাম কি ? সে কেন মৃণালের শ্বশুর বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিল ?


উত্তর:- মৃণালের বড়ো জায়ের বোনের নাম বিন্দু । তার বিধবা মা মারা যেতেই খুড়তুতো ভাইদের অত্যাচার সইতে না পেরে দিদির বাড়িতে আসে ।


২০। বিন্দু কাকে ভালোবেসে ফেলেছিল ?


উত্তর:- বিন্দু মৃণাল কে ভালোবেসে ফেলেছিল ।


২১। বিন্দু মৃণালের মুখ দেখে কি বলেছে ?


উত্তর:- বিন্দু মৃণালের মুখ দেখে বলেছে " দিদি , তোমার এই মুখ খানি আমি ছাড়া আর কেউ দেখতে পায়নি ।"


২২। মৃণালের শ্বশুর বাড়ির লোকেরা বিন্দু কে হাসপাতালে পাঠাতে চেয়েছিল কেন ?


উত্তর:- বিন্দুর গাঁয়ের ঘামাচি জাতীয় কিছু বেরোতেই মৃণালের শ্বশুর বাড়ির লোকেরা তাকে বসন্ত বলে হাসপাতালে রেখে আসতে চেয়েছিল । আসলে তাকে বাড়ি থেকে সরাতে চেয়েছিল ।


২৩। মৃণালের ঘর থেকে রাজুবন্ধ চুরি গেলে বাড়ির লোকেরা কাকে সন্দেহ করেছিল ?


উত্তর:- মৃণালের ঘর থেকে রাজুবন্ধ চুরি গেলে বিন্দুকে সন্দেহ করতে বাড়ির লোকেদের লজ্জা হয়নি ।


২৪। বিন্দুর চেহারা কেমন ছিল ?


উত্তর:- বিন্দুর চেহারা ভালো ছিল না । রং ছিল কালো । গঠন ছিল সাধারণ ।


২৫। বিন্দুকে কেমন পাত্রের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়েছিল ?


উত্তর:- বিন্দুকে পাগলের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়েছিল । বদ্ধ পাগল । এক একদিন ঘরে তালাবন্ধ করে রাখতে হত ।


২৬। বিন্দুকে শাশুড়ি কেমন প্রকৃতির ছিল ?


উত্তর:- বিন্দুর শাশুড়ি প্রচন্ড , " রাগলে জ্ঞান থাকে না । সেও পাগল কিন্তু পুরো নয় বলেই আরো ভয়ানক ।"


২৭। বিন্দুর স্বামী পাগল জেনেও তার আপন দিদি কী বলেছিল ?


উত্তর:- বিন্দুর স্বামী পাগল জেনেও তার আপন দিদি বলেছিলেন " তা পাগল হোক , ছাগল হোক , স্বামী তো বটে ।"


২৮। মৃণালের ভাইয়ের নাম কি ? সে কোন কোন কাজে উৎসাহী ?


উত্তর:- মৃণালের ভাইয়ের নাম শরৎ । সে ভলেন্টিয়ারি করা , প্লেগের পাড়ায় ইঁদুর মারা , দামোদরের বন্যায় ছটা প্রভৃতি কাজে উৎসাহী ছিল ।


২৯। শরৎ কোথায় পড়াশোনা করত ?


উত্তর:- শরৎ কলকাতায় পড়াশোনা করত ।


৩০। শরৎ কোন পরীক্ষায় ক বার ফেল করেছিল ?


উত্তর:- শরৎ এফ . এ পরীক্ষায় পর পর দু বার ফেল হয় ।


৩১। মৃণাল শরৎ কে কোন দায়িত্ব দিয়েছিল ?


উত্তর:- মৃনাল শরৎ কে বিন্দুর খবর নেবার দায়িত্ব দিয়েছিল ।


৩২। বিন্দু দ্বিতীয় বার শ্বশুর বাড়ি থেকে পালিয়ে কোথায় আশ্রয় নিতে গিয়েছিল ?


উত্তর:- বিন্দু দ্বিতীয় বার শ্বশুর বাড়ি থেকে পালিয়ে তার খুড়তুতো ভাইদের কাছে আশ্রয় নিতে গিয়েছিল ।


৩৩। বিন্দু খুড়তুতো ভাইদের কাছে আশ্রয় নিতে গেলে ভাইরা কী প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল ?


উত্তর:- বিন্দু খুড়তুতো ভাইদের কাছে আশ্রয় নিতে গেলে তাঁর ভাইরা রাগ করে তখনই তাকে শ্বশুর বাড়ি পৌঁছে দিয়ে যায় । খেসারত এবং গাড়ী ভাড়া লাগে বলে ঝাঁজ দেখায় ।


৩৪। মৃণাল কার সঙ্গে কোথায় তীর্থ করতে যেতে চেয়েছিল ?


উত্তর:- মৃনাল খুঁড়ি শাশুড়ীর সঙ্গে শ্রীক্ষেত্রে তীর্থ করতে যেতে চেয়েছিল ।


৩৫। বিন্দুর দিদি বিন্দু কে কি বলে ডাকত ?


উত্তর:- বিন্দুর দিদি বিন্দু কে " বিন্দি " বলে ডাকত ।


৩৬। মৃণাল ভাইকে কীভাবে ফোঁটা দিত ?


উত্তর:- মৃনাল তাঁর ভাইকে ফোঁটা পাঠিয়ে দিত লোক মারফৎ ।



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন