রবিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২১

ভেবেছিলাম গল্পে গল্প কথকের বাবার চরিত্রটি বিশ্লেষণ করো এবং চরিত্রটি কতটা শিল্প সম্মত হয়েছে আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর

 

বাংলা অনার্স সাম্মানিক bengali honours ভেবেছিলাম গল্পে গল্প কথকের বাবার চরিত্রটি বিশ্লেষণ করো এবং চরিত্রটি কতটা শিল্প সম্মত হয়েছে আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর

উত্তর:-  সন্তোষ কুমার ঘোষের একটা বিখ্যাত ছোটগল্প “ ভেবেছিলাম ” এ গল্পের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রটি হল গল্প কথকের বাবার চরিত্র । এই বাবা একজন অর্থহীন , কর্মহীন , দিশাহীন অথচ স্ত্রী , পুত্র , কন্যাদের প্রতি দায়িত্বশীল পুরুষ মানুষ । এ রকম একজন ব্যার্থ , হেরে যাওয়া মানুষের যন্ত্রণাই এ গল্পে আভাসিত করে তোলা হয়েছে ।



[       ] মফস্বলের মানুষ বাবা কলকাতার এক ছোট কারখানায় শ্রমিকের কাজ করতেন । পরিবার থাকতো গ্রামের বাড়িতে । তাদের জন্য মানিঅর্ডার করে টাকা পাঠালে তার উপর নির্ভর করে বউ ছেলেমেয়ে খাওয়া পরা চলত । সামান্য টাকায় বৃষ্টি বাদলায়  তাদের খুবই কষ্ট হত বলেই কলকাতায় বাসা নিয়ে বউ ছেলে মেয়েকে সেখানে এনে রাখেন । এবার ভালো থাকারই কথা , কিন্তু গরীবের আর ভালো থাকা হয় না । বাবার কারখানার মালিকানা হাতবদল হওয়ায় আপাতত কাজ বন্ধ হল তাই বাবার মতো শ্রমিকের উপার্জনও বন্ধ হল ।




[       ] উপার্জন না থাকায় চারটি মানুষের খোরাক জোগাড় করা খুবই কষ্টকর হয়ে ওঠে বাবার কাছে । স্ত্রীকে সান্ত্বনা দেন , খুব শীঘ্রই কারখানার কাজ শুরু হবে , সমস্যাও ঘুচে যাবে । কিন্তু ঘোচে না । এক কামরার বাসা , অল্প ভাড়া । তাও বাকি পড়ে যায় । পরিবারকে ভালো রাখার ইচ্ছে থাকলেও অর্থাভাবে পারেন না । মিথ্যা বলতে হয় । স্ত্রীকে থিয়েটারে নিয়ে যাবেন বলেও পারে না । তাই স্ত্রীর কাছ  থেকে পালিয়ে বেড়াতে হয় । মিথ্যা অজুহাত দিতে হয় ।




[       ] ছেলে মেয়ের আবদার মেটানোর সাধ্যও ছিল না বাবার । দিদির জন্য পামলিভ সাবান মায়ের সুবাসিত তেল এনে দিতে পারেননি । তা ব্যর্থতার যন্ত্রনায় দগ্ধ হতে হতে তাঁর মেজাজটাই খিটে খিটে হয়ে যায় । নিজের ছেলেকে সামান্য দোষে ,  “ শুয়র কা বাচ্চা ” বলে গালি দেন । মা বাবার দোষ ঢাকতে ভালো ভালো কথা বলেন । যেমন “ প্রাণ দিয়ে লোকের জন্য করত ।  সমাজসেবা , দেশপ্রেম । তাই তো নিজের কিছু হল না ।” “ এক টাকা পেলে চার টাকা ওড়ায় , একে ওকে দেয় ।” 




[       ] বাবার মনের জোর ছিল । ভেঙ্গে পড়তেন না । অন্যদেরও আশান্বিত করার চেষ্টা করতেন । কিন্তু দীর্ঘ দিনের ব্যর্থতা মানুষটাকে একেবারে শেষ করে দেয় । উপার্জনের কত পথই তিনি অবলম্বন করতে চেয়েছেন । ছাপাখানায় কাজ নিতে চেয়েছেন , বাস কন্ডাক্টর হতে চান , বন্ধুর সঙ্গে শেয়ারে চায়ের দোকানও খুলতে চান । এই দোকান খোলার জন্য ঘরের কোণে মাদুর পেতে বসে কত প্ল্যান এস্টিমেট হিসেব নিকেশ করেছেন । পরে জানা গেছে , লোকটা ধান্দাবাজ । বাবা তাকে তাড়িয়ে দিয়েছেন । সে খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে দিদির হাত ধরেছিল ।





[        ] উপার্জনের ব্যর্থতা বাবাকে একেবারে শেষ করে দেয় । বাড়িতে আত্মীয় কুটুম্ব এলেও তাদের কাছে কিছু পাবার আশায় করতেন । আসা না থাকলে ব্যবহার মন্দ হয়ে যেত । রাঙা জ্যাঠাইমা কলকাতার বাসায় এসে তার সঙ্গে বাবা হাসি ঠাট্টা করলেও মনে ভয় জেগেছে , মানুষটাকে কদিন খেতে দিতে হবে । তাই , বউকে আড়ালে জিজ্ঞাসা করেছেন , “ কতদিন থাকবে বলছে ”




[       ] রাঙা জ্যাঠাইমা থাকতে থাকতেই আসেন বরুণমামা । তাঁর বাড়ি চাটগাঁয়ে কলকাতায় এসেছেন মামলার তদ্বির করতে । থাকবেন মাস খানেক । এই মামা সম্পন্ন মানুষ । গল্প কথক আর তাঁর দিদিকে দুটি রুপোর টাকাও দেন । এই মামা এ বাড়িতে না থেকে দুঃসম্পর্কের বোন বানীর বাসায় থাকতে গেছে জেনে বাবা মায়ের উপর রাগ করেন । জ্যাঠাইমা কদিন থাকলেও একটা টাকা বের করেননি , অথচ বরুণমামা নাকি কটা জিনিস কেনার জন্য বাণী মাসির বরকে একশো টাকার নোট দিয়েছেন ।  এ বাসায় থাকলে নোটটা নিশ্চয় বাবা পেত , এটা হাত ছাড়া হওয়ায় বাবার রাগ গিয়ে পড়ে রাঙ্গা জ্যাঠাইমার উপরও । তাই গঙ্গা স্নান করে ফেরার সময় দুটো চালতে এনে রাখলে বাবার পদাঘাতে ছিটকে যায় । জ্যাঠাইমা বুঝতে পেরে মনে কষ্ট নিয়ে সেদিনই পরের গাড়িতে চলে যান ।





[       ] দারিদ্র্য যন্ত্রণায় বাবাকে সকলের কাছ থেকে আলাদা করে দিচ্ছিল । তাঁকে ক্রমশ অমানুষ করে তুলছিল । তাই অর্থ লাভের এক হীন  উপায় অবলম্বন করতেও ছাড়লেন না । মেয়ের বিয়ে দেবেন বলে কনে দেখাবার জন্য পাত্রপক্ষ বলে যাদের নিয়ে এলেন , জানা গেল , তারা মেয়েছেলের টাউট । দিদি কে বিক্রি করার চেষ্টা হয়েছে । এতে বাবা মার সম্পর্ক নষ্ট হল । দিদি আত্মহত্যা করতে চাইল । ভালো থাকার স্বপ্ন নিয়ে কলকাতায় এসে বাবা মাকে ব্যর্থতা এবং দারিদ্র্য যন্ত্রণায় ধাপে ধাপে নিচে নামতে দেখলেন । বেকারত্ব , ও উপার্জনহীনতা কিভাবে যে মানুষকে নষ্ট করে দেয় , তার আভাস ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এই বাবার চরিত্রের মধ্যে দিয়ে । লেখক চরিত্রটিকে যথেষ্ট বাস্তব সম্মত ও বিশ্বাসযোগ্য ও শিল্পসম্মত করেই উপস্থাপিত করতে পেরেছেন ।





কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন