শুক্রবার, ২৩ জুলাই, ২০২১

শৈবলিনীর নরক দর্শন বর্ণনা করো । এই নরক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাওয়ার কোন উপায় ছিল ? কে সেই উপায় নির্দেশ করেন ।

 

বাংলা অনার্স শৈবলিনীর নরক দর্শন বর্ণনা করো এই নরক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাওয়ার কোন উপায় ছিল কে সেই উপায় নির্দেশ করেন bangla honours shoibolinir norok dorshon bornona koro ai norok jontrona theke mukti paoyar kon upay chilo ke sei upay nirdesh koren questions answer


                       প্রশ্নের মান - ৫/৬



প্রশ্ন: শৈবলিনীর নরক দর্শন বর্ণনা করো । এই নরক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাওয়ার কোন উপায় ছিল ? কে সেই উপায় নির্দেশ করেন ।



উত্তর:-  প্রতাপকে ইংরেজদের নৌকা থেকে উদ্ধারের পর নিজের শপথ রক্ষার জন্য শৈবলিনী প্রতাপের সান্নিধ্য ছেড়ে পালায় । অরন্যময় নির্জন পর্বতের গা বেয়ে উঠতে থাকে । ঝড় বৃষ্টিতে , অনাহারে , পথশ্রমে এক সময় তাঁর চেতনা লুপ্ত হয় । তখন তাকে অনুসরন করা রমানন্দ স্বামীর নির্দেশে চন্দ্রশেখর পর্বত শীষের এক গুহায় নিয়ে যান । সেখানে পাথরের উপরে শুইয়ে দেওয়া হয় । চৈতন্যলুপ্ত শৈবলিনী তখন। স্বপ্ন দর্শনের মতোই। নরক দর্শন করে । দেখে তাঁর সামনে একটা অনন্তবিস্তৃত নদী , তাতে জল নেই , কেবল রক্তের স্রোত । তাতে অস্থি , গলিত নরদেহ , নরমুন্ড , কঙ্কাল ভাসছে । তাতে ভয়ঙ্কর সব কুম্ভিরাকৃতি জীব বিচরণ করছে , গলিত শব ধরে খাচ্ছে । সেখানে সূর্য বা চন্দ্রের আলো না থাকেলও সব দেখা যাচ্ছে । এক মহাকায় পুরুষ শৈবলিনীকে সেই নদী সাঁতার দিয়ে পার হতে বললেন । রাজী না হওয়ায় সেই পুরুষ তাকে বেত্রাঘাত করতে উদ্যোত হলেন । সেই বেত ছিল জ্বলন্ত লোহিত লোহার । তার আঘাত সইতে না পেরে শৈবলিনী রুধীর স্রোতে ঝাঁপ দেয় । তখন কুমিররা তাকে মহাকায় পুরুষ উপর দিয়ে পায়ে হেঁটে অগ্রসর হন । শৈবলিনীর নাকে ভীষন দুর্গন্ধ আর কানে ভয়ঙ্কর শব্দ আসতে থাকে । ভয়ঙ্কর এক কিট তার মুখে ঢুকতে চায় । তখন শৈবলিনী রক্ষা কর , রক্ষা কর , প্রাণ যায় , বলে চিৎকার কর । এই নরক থেকে উদ্ধার পাবার উপায় আছে কি না জানতে চায় । 


[       ] এই নরক থেকে উদ্ধার পাওয়ার উপায় " দ্বাদশবার্ষিক " ব্রত অবলম্বন করা । এই উপায় নির্দেশ করেন মহাকায় পুরুষ । তিনি রমানন্দ স্বামী ।



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন