বৃহস্পতিবার, ৮ জুলাই, ২০২১

মীরকাসেমের বেগমের নাম কি ? তিনি কোন জাতি ? কোথা থেকে বঙ্গে এসেছিলেন ? তিনি কীভাবে তকি খাঁর হাতে পড়েন এবং কী পরিণতি লাভ করেন ?

 

বাংলা অনার্স মীরকাসেমের বেগমের নাম কি তিনি কোন জাতি কোথা থেকে বঙ্গে এসেছিলেন তিনি কীভাবে তকি খাঁর হাতে পড়েন এবং কী পরিণতি লাভ করেন Bangla honours mirkasemer begomer name ki tini kon jati kotha theke bonge asechilen


                       প্রশ্নের মান - ৫/৬


প্রশ্ন: মীরকাসেমের বেগমের নাম কি ? তিনি কোন জাতি ? কোথা থেকে বঙ্গে এসেছিলেন ? তিনি কীভাবে তকি খাঁর হাতে পড়েন এবং কী পরিণতি লাভ করেন ?



উত্তর:- মীরকাসেমের বেগমের নাম দলনী বেগম  । তিনি নবাবের সেনাপতি গুরগণ খাঁর ভগিনী ,  জাতিতে  আরমনি , জন্মস্থান ইস্পাহান । ইস্পাহান থেকেই ভাইয়ের সঙ্গে বঙ্গে আসেন ।



[      ] দলনী বেগম মীরকাসেম কে বিবাহ করার পর খুব ভালোবেসে ফেলেন । ইংরেজদের সঙ্গে যুদ্ধ হলে নবাবের ক্ষতি হতে পারে আশঙ্খায় গোপনে ভ্রাতার কাছে গিয়েছিলেন যুদ্ধ যাতে না বাঁধে সেই চেষ্টা করার কথা বলতে । কিন্তু , গুরগণ নবাব কে ক্ষমতাচ্যুত করে নিজে মসনদে বসবার স্বপ্ন দেখছিলেন । সেই স্বপ্ন পূরণের জন্যই দলনীকে নবাবের অন্তঃপুরে প্রবেশ করান । সেই দলনী শত্রুতা সাধনের সংকল্প করায় গুরগণ স্বার্থের কারণে দলনীকেই প্রসাদে প্রবেশ করা থেকে আটকে দিলেন ।



[       ]  অসহায় দলনী আর দাসী কুলসুম কে দেখতে পেয়ে ব্রহ্মচারী চন্দ্রশেখর প্রতাপের গৃহে তাঁদের রাত্রিবাসের ব্যাবস্থা করেন । কিন্তু ইংরেজদের বজরা আক্রমণের অপরাধে প্রতাপ কে ধরতে এসে সাহেবরা দলনীকে ফষ্টর সাহেবের বিবি ভেবে তাকেও ধরে নিয়ে যায় । বেশ কিছুদিন সাহেবদের নৌকায় দলনী আর কুলসুমকে কাটাতে হয় । নবাবের নির্দেশে তকি খাঁ তাকে উদ্ধার করার জন্য অমিয়টের নৌকা আক্রমণ করে । কিন্তু বেগমদের নিরাপত্তার জন্য অমিয়ট তাদের ফষ্টরের বজরায় তুলে দিয়ে কলকাতার দিকে যেতে নির্দেশ দেয় । বজরা মুর্শিদাবাদ ছেড়ে কিছুদূর দক্ষিণে যাওয়ার পর পিছনে একটা পানসি নৌকা দেখে অসুস্থ ভীত ফষ্ঠর ভাবে , বেগমের কারণে নবাবের সেপাইরা বজরার পিছু ধাওয়া করেছে । তাই নিজেকে রক্ষা করতে সে বেগমকেই তীরে নামিয়ে দেয় । কিন্তু সেই নৌকা নবাবের লোকেদের ছিল না । নির্জন নদীতীরে , সন্ধাবেলা।দলনী বেগম পরিত্যক্ত হন । এই অবস্থায় সাক্ষাৎ হয় ব্রহ্মচারী চন্দ্রশেখরের সঙ্গে । গনতকার চন্দ্র জানতেন , দলনীর সঙ্গে নবাবের আর সাক্ষাৎ হবে না । দলনীর মুঙ্গের দর্শন নেই । তবু জেদ করায় ব্রহ্মচারীতকি খাঁর আলয়ে দলনীকে পৌঁছে দেন । কিন্তু তকি খাঁ নবাবকে ইতিমধ্যেই এমন এক পত্র লিখেছেন যে , পত্রের বিষয় সত্য মনে করে নবাব বেগমকে বিষপানে মরতে আদেশ দেন । তকি তাঁকে গ্রহণ করতে চাওয়ায় দলনী তাঁকে পদাঘাত করেন এবং প্রিয়তমের আদেশ মতো বিষপান করে মৃত্যুবরণ করেন ।



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন