শুক্রবার, ২৭ আগস্ট, ২০২১

গণদেবতা অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

 

বাংলা অনার্স সাম্মানিক গণদেবতা অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর বাংলাদেশ বাংলা কলা বিভাগ গণদেবতা অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর bd Kolkata Bangla honours gonodebota oti songkhipto questions answer marks 1/2



                    প্রশ্নের মান ১/২



১। " গণদেবতা " উপন্যাস টি কোন পত্রিকায় কি নামে প্রকাশিত হয় ?


উত্তর:- " গণদেবতা " উপন্যাসটি " ভারতবর্ষ " পত্রিকায় " চন্ডিমন্ডপ " নামে প্রকাশিত হয় ।


২। " গণদেবতা " উপন্যাসটি গ্রন্থকারে কত সালে প্রকাশিত ? এই উপন্যাসের পরের অংশ টি কী নামে পরিচিত ?


উত্তর:- " গণদেবতা " উপন্যাসটি গ্রন্থকারে প্রকাশিত হয় ১৩৪৯ বঙ্গাব্দে ( ১৯৪২ সালে ) । এর পরবর্তী অংশটি " পঞ্চগ্রাম " উপন্যাস নামে পরিচিত ।


৩।  " গণদেবতা " উপন্যাসের জন্য লেখক তারাশঙ্কর কত সালে কোন বিশেষ পুরষ্কার লাভ করেন 


উত্তর:-  " গণদেবতা " উপন্যাসের জন্য লেখক তারাশঙ্কর ১৯৬৭ সালে " জ্ঞানপীঠ " পুরষ্কার লাভ করেন 


৪। যে পাঁচটি গ্রামের বিষয় নিয়ে " গণদেবতা " উপন্যাসের আখ্যান গড়ে তোলা হয়েছে , তাদের নাম কি ? উপন্যাসে কোন গ্রামটি প্রাধান্য পেয়েছে ? কেন ?


উত্তর:- উপন্যাসের পাঁচটি গ্রাম হল - শিব পুর , কালী পুর , কঙ্কনা , মহাগ্রাম , দেখুরিয়া ও কুসুম পুর । শিব পুর ও কালী পুরকে একত্রে " শিবকালীপুর " একটা গ্রাম । এই গ্রামে প্রধান চরিত্র গুলির বাড়ী , তাই শিবকালীপুর গ্রাম প্রাধান্য পেয়েছে ।


৫। গ্রামের কোন সমস্যা নিয়ে " গণদেবতা " উপন্যাসের সূত্রপাত হয় ?


উত্তর:- গ্রামের কর্মকার অনিরূধ এবং ছুতার গিরিশ ধান চুক্তিতে আর গ্রামের কাজ করে না । তারা ময়ূরাক্ষীর ওপারে জংশন শহরে দোকান করে নগদ পয়সায় কাজ করে । এতে চাষের সময় লাঙ্গল তৈরী , লাঙলের ফাল বাড়ানো , ইত্যাদি কাজ থেকে গ্রামের মানুষ বঞ্চিত এবং ক্ষতিগ্রস্ত হয় । এই সমস্যার বিচার নিয়েই উপন্যাসের সূচনা ।


৬। " এই ব্যাপার লইয়া অনিরুদ্ধ এবং গিরিশের বিরুদ্ধে অসন্তোষের সীমা ছিল না ।" কোন ব্যাপারের কথা বলা হয়েছে ?


উত্তর:- " এই ব্যাপার " বলতে অনিরুদ্ধ কামার ও গিরিশ ছুতারের ধান চুক্তিতে কাজ না করার । নগদ পয়সায় কাজ করার সিদ্ধান্ত কে বলা হয়েছে । গতানুগতিক প্রথায় তাদের আর তেমন হয় না । তাই ধান চুক্তিতে কাজের প্রথার বিরুদ্ধে  অনিরুদ্ধ ও গিরিশের সিদ্ধান্ত অসন্তোষের কারণ হয়েছে ।


৭। শিবকালী পুরের মানুষকে কোন নদী পার হয়ে জংশন স্টেশনে যেতে হয় ? ভরা কালে সেই নদীর খেয়া পার হতে কত সময় লাগে ?


উত্তর:- জংশন স্টেশনে যেতে ময়ূরাক্ষী নদী পার হতে হয় । ভরা কালে এই নদীর খেয়া পার হতে দেড় ঘণ্টা লেগে যায় ।


৮। গ্রামের মানুষের লাঙলের ফাল পাঁজানো , চাকায় হাল পরানো , কাস্তে ইত্যাদি বানানোর জন্য অনিরুদ্ধ কী পেত ? তাতে তাঁর আপত্তি কেন ?


উত্তর:- গ্রামের চাষীদের ফাল পাঁজানো ইত্যাদি কাজ করে অনিরুদ্ধ হাল প্রতি পাঁচ শলী ধান পেত । কিন্তু , এই সামান্য পরিমাণ ধানও সকলে সময় মতো পরিশোধ করত না , বাকী রাখত ; তারপর আর দিত না । তাই , ধান চুক্তিতে কাজ করতে অনিরুদ্ধর আপত্তি ।


৯।  ছিরু পাল অনিরুদ্ধের কাছে পাওনা হিসেবে কত টাকা দাবী করে ? অনিরুদ্ধ তাকে কত টাকা দিয়ে হ্যান্ডনোট ফেরত চায় ?


উত্তর:-  ছিরু পাল ধার দেওয়া দশ টাকার সুদ সহ হিসেব করে পঁচিশ টাকা ন আনা তিন পয়সা দাবী করে । অনিরুদ্ধ তাকে পঁচিশ টাকা দশ আনা দিয়ে হ্যান্ডনোটখানা ফেরৎ চায় । 


১০। শ্রী হরি অনিরুদ্ধের অপমানের প্রতিশোধন কীভাবে নেই ?


উত্তর:- শ্রী হরি অনিরুদ্ধের দুই বিঘা বাকুড়ির আধা পাকা ধান কেটে নিয়ে প্রতিশোধ নেই ।


১১। শ্রী হরি প্রথম দিকে নিজের সম্পদ বাড়াতে কোন কোন উপায় অবলম্বন করেছিল ?


উত্তর:- নিজের সম্পদ বাড়াতে শ্রী হরি চুরির পথ অবলম্বন করে । করাত দিয়ে শব্দ না করে পড়ের ঝাড়ের বাঁশ কেটে রাতারাতি নিজের পুকুরে ফেলে রাখে । জাল ফেলে পরের পুকুরের মাছ ধরে এনে নিজের পুকুরে বোঝায় করে । বর্ষায় পাঁচিল ফেলে দিয়ে নতুন পাঁচিল তোলার সময় অন্যের জমি চাপিয়ে নেই ।


১২। গ্রামের চন্ডী মন্ডপে কী কী অনুষ্ঠিত হত বলে উপন্যাসে উল্লেখ আছে ?


উত্তর:- গ্রামের চন্ডী মন্ডপে বিচার সভা , গ্রাম্য কোনো সমস্যা নিয়ে আলোচনা সভা , কীর্তন , কবি গান ইত্যাদি আসর , ধর্মীয় অনুষ্ঠান , পাঠশালার পঠন পাঠন ইত্যাদি অনুষ্ঠিত হত ।


১৩। অনিরুদ্ধের বাকুরির ধান চুরির পুলিশি তদন্তে ছিরু পাল কীভাবে নিজেকে বাঁচায় ?


উত্তর: ধান চুরির অপরাধ থেকে বাঁচতে ছিরু পাল থানার জমাদার কে পঞ্চাশ টাকা ঘুষ দিয়ে রাখে ।


১৪। ছিরু পালের কয়টি সন্তান ? তার পরিবারের আপন জন বলতে কে ছিল ?


উত্তর:- ছিরু পালের সাতটি সন্তান জন্মালেও বেঁচে আছে দুজন । পরিবারে তার আপনজন বলতে ছেলে দুটি ছাড়াও স্ত্রী এবং মা ছিলেন ।


১৫। চন্ডীমন্ডপের স্থায়ীত্ব সম্পর্কে দেবু পন্ডিতের বলা সংস্কৃত কথাটি কী ? তার অর্থ বা কী ?


উত্তর:- চন্ডীমন্ডপের স্থায়ীত্ব সম্পর্কে দেবু পন্ডিত উচ্চারিত সংস্কৃত কথাটি হল " যাবচ্ছন্দ্রাকর্মোদিনী । " এর অর্থ হল যতদিন চন্দ্র সূর্য পৃথিবী টিকে থাকবে , ততদিন চন্ডীমন্ডপও টিকে থাকবে ।


১৬। ছিরু পালের এমন চারটি অপরাধের উল্লেখ  করো যাঁর কারণে ছিরু পালের কারাবাস হওয়া উচিত ।


উত্তর:- ছিরু পালের অপরাধ গুলি হল - ক) বিড়ির আগুনে পাতুর ও বায়েন দের গৃহদাহ করা ।


খ) অনিরুদ্ধর জমির ধান রাত্রে কেটে নেওয়া ।


গ) আঙ্গটজুতির জন্য পয়সা চাওয়ায় পাতু বায়েনকে নির্মম প্রহার করা ।


ঘ) মিথ্যা অভিযোগে দেবনাথ পন্ডিত কে ১৫ মাস জেলে পাঠানো ।



১৭। পাতু মুচির পদবী কী ? তার উপার্জনের পথ কী ছিল ?


উত্তর:- পাতু মুচির পদবী ছিল বায়েন । বায়েনরা সাধারনত ঢাক বাজায় । তবে পাতুর উপার্জনের আরো পথ ছিল । যেমন -  ( ক) কিছু চাকরান জমি ছিল । ( খ) দেবত্র জমির ধান পিছু পেত ( গ) নিজের হাল বলদে চাষ করত ( ঘ ) ভাগাড়ের গরুর চামড়া ছাড়িয়ে বিক্রি করত ।


১৮। ত্রিপুরা সিং কে ? সে কয়বার গাঁয়ের দরিদ্র মানুষের ঘরে আগুন দিয়েছে ?


উত্তর:- ত্রিপুরা সিং দুর্গা পুরের এক মহাজন ও ছোট খাট জমিদার । অত্যন্ত শক্তিশালী , পরিশ্রমী এবং অত্যাচারী মানুষ । সে তিনবার গাঁয়ের মানুষের ঘরে আগুন দিয়ে তাদের সর্বস্বান্ত করেছে ।  গাঁয়ের মানুষকে বশে রাখা এবং মহাজনী ব্যাবসার প্রসার ঘটানো ।


১৯। গরীবদের ঘর পোড়াবার পর শ্রীহরি শয়তান না হয়ে মহান হয়ে ওঠে কীভাবে ?


উত্তর:- ঘর পোড়াবার পর নিজের রাখাল ও তাঁর পরিবারের দুর্দশার কথা ভেবে তাদের কিছু চাল , ধান ও খড় দিতে স্বীকৃত হয় । পড়ে পাড়ার অন্যদের ও পাঁচসের করে চাল , ঘর ছাইবার খড় ও কিছু ধান সাহায্য দেবার কথা ঘোষণা করে । তাতেই তার জয়জয়কার হয় । সে শয়তান না হয়ে " মহান " হয়ে যায় । আরো অনেক মহৎ কাজেরও সংকল্প করে ।



২০। " জগন নোটিশ খানা দেখিয়া গর্জন করিয়া উঠিল - ইয়ার্কি নাকি ? এসব কি পৈতৃক জমিদারী পেয়েছে সব ।" জগন কে ? নোটিশ টা কী ছিল ?


উত্তর:- " জগন নোটিশ খানা দেখিয়া গর্জন করিয়া উঠিল " জগন হল শিবকালীপুরের ডাক্তার জগন্নাথ ঘোষ । পুরুসা ক্রমে তারা ডাক্তার । তবে মানবদরদী । গাঁয়ের কাউকে চিকিৎসা করে সে পয়সা নেয় না । গাঁয়ের গরীব দুঃখীদের ভালো করবার আকুলতা তার আছে ।


নোটিশ টা ছিল এক সপ্তাহের মধ্যে আসার ও আশ্বিন দুই কিস্তির ট্যাক্স জমা দিতে হবে । নইলে দেড়গুণ সুদ সহ জমা দিতে হবে । গরীব চাষীদের উপর এই রকম অত্যাচার সহ্য করা যায় না বলেই জগন ক্রুদ্ধ হয়ে গর্জন করে ।



২১।  দেবু পন্ডিতের পুরো নাম কি ? সে কতদূর পর্যন্ত লেখাপড়া শিখেছিল ? তাঁর উপার্জনের রাস্তা কী ?


উত্তর:- দেবু পন্ডিতের পুরোনাম দেবনাথ ঘোষ । সে ফাস্ট ক্লাস পর্যন্ত লেখাপড়া করে ছিল । বাবা মারা যাওয়ায় সংসারের দায়িত্ব কাঁধে চাপায় আর এগোতে পারেনি । দেবু পণ্ডিতের উপার্জনের রাস্তা ছিল পাঠশালায় পন্ডিতি এবং কৃষানের সাহায্য চাষ । জেল খেটে আসায় তার পন্ডিতের চাকরি ঘুচে গেলেও চাষ বজায় থাকে ।


২২। " গণদেবতা " উপন্যাসে ছিরু পালের বাবার পরিচয় কতটা দেওয়া হয়েছে ? উল্লেখ করো ।


উত্তর:- উপন্যাসে ছিরু পালের বাবার পরিচয় নেই বললেই চলে । শুধু জানা যায় তার বাবার নাম ব্রজবল্লভ । নামটা গুরুগম্ভীর হলেও মানুষটা হালকা ছিল । সাধারণ এক চাষী । তেমন বুদ্ধিমান বা চালাক চতুর ছিল না । তবে পরিশ্রমী ছিল ।


২৩। কোন সূত্রে দেবুর বউকে দুর্গা বিলু দিদি বলে ? উল্লেখ করো ।


উত্তর:- দেবু পন্ডিতের বউ বিলুর বাপের বাড়ি আর দূর্গার মায়ের বাপের বাড়ি একই গাঁয়ে । দূর্গার দিদিমা বিলুর বাপের বাড়িতে কাজ করত । দূর্গার মা বাপের বাড়িতে গেলে বিলুকে কোলে পিঠে করিত । এই সূত্রেই বিলু দূর্গার দিদি বিলু দিদি ।


২৪। ইতু লক্ষ্মীর পূজা কী উদ্দেশ্য কাকে পূজা ?


উত্তর:- ইতুলক্ষ্মীর পূজা হল রবি শস্যের কল্যাণ কামনায় সূর্য দেবতার পূজা ।


1 টি মন্তব্য:

  1. First and foremost I would like to thank you for posting this site. I have enjoyed reading and experiencing what your site has to offer. to get all the details meri fasal mera byora visit here, and avail the benefit of government schemes 2021

    উত্তরমুছুন