বৃহস্পতিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আমার ছেলে দুটিকে তোমরা গাল দিও না ভাই যে করেছে তাকে গাল দিও কে কাকে কোন প্রসঙ্গে একথা বলেছে বক্তার চরিত্রের পরিচয় দাও প্রশ্নোত্তর

 

বাংলা অনার্স সাম্মানিক আমার ছেলে দুটিকে তোমরা গাল দিও না ভাই যে করেছে তাকে গাল দিও কে কাকে কোন প্রসঙ্গে একথা বলেছে বক্তার চরিত্রের পরিচয় দাও প্রশ্নোত্তর Bengali honours gonodebota amar chele dutike tomra gal dio na vai je koreche take gal dio ke kake kon prosonge akotha boleche boktar choritrer porichoy dao


                   প্রশ্নের মান :- ৫/৬



প্রশ্ন:  " আমার ছেলে দুটিকে তোমরা গাল দিও না , 

ভাই ; যে করেছে তাকে গাল দিও ..." কে কাকে কোন প্রসঙ্গে একথা বলেছে ? বক্তার চরিত্রের পরিচয় দাও ।



উত্তর:- " আমার ছেলে দুটিকে তোমরা গাল দিও না , ভাই .." একথা শ্রীহরি পালের বউ অনিরুদ্ধ কামারের বউ পদ্ম কে উদ্দেশ্য করে বলেছে ।

শ্রীহরি সাংঘাতিক মানুষ । শত্রু ভাবাপন্ন মানুষকে জব্দ করতে সে ভয়ংকর অপরাধ মূলক কাজ করতেও দ্বিধা করে না । কিন্তু তাঁর বউ খুবই সহজ , সরল , দুঃখী মানুষ । তার সাতটা সন্তানের মধ্যে মাত্র দুটি বেঁচে আছে , তাও একটা রোগা , একটা পঙ্গু । তাঁর বিশ্বাস , স্বামী শ্রীহরির পাপের ফলেই সন্তানদের এই দশা । কিন্তু শ্রীহরি এটা বুঝতেও চায় না , নিজেকে অপরাধ কর্ম থেকে বিরতও করে না । চন্ডীমণ্ডপের সভায় অনিরুদ্ধ শ্রীহরিকে অপমান করেছিল বলে ক্রুদ্ধ শ্রীহরি অনিরুধের দু ' বিঘে জমির আধ পাকা ধান রাত্রে চুরি করে কেটে আনে । এটা অনুমান করতে অনিরুদ্ধ ও তাঁর বউ পদ্মর কোনো পরিশ্রম করতে হয়নি । কিন্তু শ্রীহরি ক্ষমতাবান , অর্থবান এবং ভয়ংকর মানুষ । সরাসরি তাঁর বাড়িতে চড়াও হওয়ার সাহস কারো নেই । তাই , নাম না করে ধান চোর গাল দিছিল পদ্ম । সেই গালাগালির মধ্যে পদ্ম এও বলছিল , যেন ধান চোরের জোড়া বেটা এক বিছানায় ধড়ফড় করে মরে ।



[      ] শ্রীহরির বউও জানে , ধান চুরির অপরাধ তার স্বামী করেছে । বাবার পাপে ছেলে কেন মরবে ! রোগা পঙ্গু ছেলে দুটোকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য শ্রীহরির হয়তো কোনো মাথা ব্যাথা ছিল না , কিন্তু তার বউয়ের উদ্বেগের অন্ত ছিল না । পদ্মের গাল যদি লেগে যায় । যদি সত্যিই ছেলে দুটোর ক্ষতি হয় , তাহলে বউটা বাঁচবে কী নিয়ে , তাই পদ্মর কাছে এসে সে প্রাথর্না জানায় ছেলে দুটোর ক্ষতি চেয়ে সে যেন গাল না দেয় ! 



[      ] শ্রীহরির বউ টা ভালো । তার মনে কোনো পাপ নেই । সে কারো ক্ষতি চায় না । স্বামীর নানান পাপ কর্মের জন্য সে নিজে ভয়ে সিটিয়ে থাকে ; যদি স্বামীর পাপে তার ছেলেদের ক্ষতি হয় । তার মনে কোনো অংহকার নেই । সে কাউকে গাল দেয় না , বরং পাড়া প্রতিবেশী দের সঙ্গে মানিয়ে চলতে চায় । স্বামীর শত্রু দেবু পণ্ডিতের জেল হলে বউটা মাঝে মাঝে গিয়ে দেবুর বউ বিলুর খোঁজ খবর নিয়েছে । তাকে জিনিস পত্রও দিয়েছে ।



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন