রবিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১

মিথিলার কবি বিদ্যাপতি কে বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে অন্তভুক্তির কারণ দেখিয়ে বৈষ্ণব পদ সাহিত্যে তাঁর অবদান সম্পর্কে আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর

 

বাংলা অনার্স সাম্মানিক bengali honours মিথিলার কবি বিদ্যাপতি কে বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে অন্তভুক্তির কারণ দেখিয়ে বৈষ্ণব পদ সাহিত্যে তাঁর অবদান সম্পর্কে আলোচনা করো প্রশ্নোত্তর

উত্তর:- বিদ্যাপতি মিথিলার অধিবাসী হয়েও রসিক বাঙালি হৃদয়ে তিনি সুপ্রতিষ্ঠিত । তাঁকে ‘ মৈথিলি কোকিল ’ বলা হয় । তিনি বাঙালী ছিলেন না তবুও বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে তাঁর অবদানের শেষ নেই । বিদ্যাপতি মূলত রাধাকৃষ্ণ বিষয়ক পদ রচনা করেছেন । এছাড়াও তাঁর অনেক গ্রন্থের সন্ধান পাওয়া যায় । তিনি মিথিলাবাসী হয়েও বাঙালীর এত প্রিয় হবার কিছু কারণ ছিল ।



বাংলা সাহিত্যে অন্তভুক্তির কারণ : এই পর্যায়ে কয়েকটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয় । সেগুলি আলোচনা করা হল 


১। তখনকার সময়ে বাংলা ও মিথিলা শিক্ষাচর্চার পীঠস্থান ছিল । ফলে বাংলার ছাত্র মিথিলার এবং মিথিলার ছাত্র বাংলায় যাওয়া আসা করায় তাদের মধ্যে একটি আত্মিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে ।


২। চৈতন্যদেব বিদ্যাপতির পদাবলী পদে আনন্দ পেতেন । সেই কারণে বাঙালীরাও তাঁর পদাবলী আস্বাদন করতেন ।


৩। গোবিন্দ দাস বিদ্যাপতির পদ অনুসরণ করে পদাবলী রচনা করতেন বলে গোবিন্দ দাস কে “ দ্বিতীয়ত বিদ্যাপতি ” বলা হয় । বিদ্যাপতি যেন বাংলাদেশেই নব জন্ম লাভ করেছেন । কারণ তাঁর পদাবলী বাঙালিরা অত্যন্ত পছন্দ করেন । বিদ্যাপতি মধুর রসের পদাবলী রচনা করতেন আর বাঙালী রসিক পাঠকেরা সেই মধুর রসে আকৃষ্ট হয় । সমালোচক দীনেশ চন্দ্র সেন মন্তব্য করেছেন “ আমরা বিদ্যাপতির কুর্তা পাগড়ী খুলিয়া ধুতি চাদর পরাইয়াছি ।” বাঙালীর অন্তরের মধ্যে বিদ্যাপতি চিরদিনের মতো আসন গ্রহণ করেছেন । বিদ্যাপতি যেমন তাঁর কৃতিত্ব দেখিয়েছেন বাঙালীও তাঁকে যথার্থ সম্মানের আসনেই বসিয়েছে ।



[       ] কবি বিদ্যাপতি আবির্ভাব ও তিরোভাবের কোনও সঠিক কাল নেই । তবে ১৩৮০ খ্রি: বা কিছু পূর্ববতী সময়ে উত্তর বিহারের মধুবনী মহকুমার অন্তর্গত বিসফি গ্রামে বিদ্যাপতি জন্ম গ্রহণ করেছেন এমন অনুমান করা হয় । মিথিলার কামেশ্বরের বংশোদ্ভুত রাজা কীতিসিংহ , নরসিংহ , ভৈরব সিংহ প্রভৃতির পৃষ্ট পোষকতায় কবি বিদ্যাপতি তাঁর সুদীর্ঘ জীবন অতিবাহিত করেন ।


রচনাসমূহ : বিদ্যাপতি পদাবলী ছাড়া নানা বিষয়ে পান্ডিত্য অর্জন করেছিলেন । যেমন স্মৃতিসংহিতা , নানা গ্রন্থাদি রচনা , পৌরাণিক গ্রন্থ রচনা । তাঁর রচিত গ্রন্থ গুলি হল পরিক্রমা , পুরুষ পরীক্ষা , কৃত্তিবিলাস , লিখনাবলী , শেষ সর্বস্ব সার ও গঙ্গাকাব্যবলী  ।



[      ] বিদ্যাপতি শৈব  হয়েও বৈষ্ণব পদাবলীতে যেন তাঁর মনের আকুতি বিশেষ ভাবে ফুটে উঠেছে । তিনি রাজসভার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বলে তার চারিপাশে একটা দরবারী আদর্শে মর্জিত পরিমন্ডল গড়ে ওঠে । ভাষা ভঙ্গিমা মাজা ঘষায় “ রাজকন্ঠের মনিমালা’র মতো দ্রুতিময় হয়েছে । 



পদাবলী : তাঁর রাধা কৃষ্ণের প্রেম বিষয়ক পদাবলী প্রায় ৫০০ এর বেশি । সংস্কৃত শাস্ত্রের নিয়মানুযায়ী রাধা কৃষ্ণের পূর্বরাগ , প্রথম মিলন , রাধার বয়:সন্ধী , অভিসার , মান বিরহ , পূর্ন মিলন প্রভৃতি বিভিন্ন লীলা পর্যায়ের মধ্য দিয়ে রাধা কৃষ্ণের লীলা বর্ণনা করেছেন । তাঁর কাব্যে জীবন রসের ছোঁয়া আছে । এই কারণেই বোধ হয় শ্রীচৈতন্যদেব তাঁর কাব্য পাঠে আনন্দ পেতেন এবং বৈষ্ণবদের গুরুস্থানীয় হয়ে উঠেছিলেন তিনি ।



[       ] বিদ্যাপতি রাধা চরিত্র অঙ্কনে বাংলা সাহিত্যে অমরত্বের আসন অধিকার করেছেন । রাধা র প্রথম যৌবন ভীতি মিশ্রিত কৌতুক , অবাধ বাসনার প্রচ্ছন্ন উল্লাস , যৌবন সমুদ্রের দুরাগত কল্লোল বিদ্যাপতি চিত্রিত করেছেন অপূর্ব সৌন্দর্যে । রাধাকে তিনি জীবন্ত করে তুলেছেন । পূর্বরাগ ও অভিসারে বিদ্যাপতি রাধাকে করে তুলেছেন রসনিপুনা ও বিলাস কলায় পরিপূনা । কিন্তু মাথুর পর্বে দুঃখে বেদনার অগ্নিতাপ রাধার চরিত্র থেকে লীলা বিলাসের ছলাকলা কিংশুক ফুলের মতো ঝরে যায় । কৃষ্ণ বিহনে বর্ষণমুখর পরিবেশে রাধার চিত্তে জেগে ওঠে দুঃসহ বেদনা ।




 “ মত্ত দাদুরী                             ডাকে ডাহুকি 

                 ফাটি যাওয়ত ছাতিয়া ।”



ভাবসম্মিলনের পদে আছে 


              “ প্রিয়া যব আওয়ব এ মঝু গেহে , 

                মঙ্গল যতহু করব নিজ দেহে ।”


এই পদের সমকক্ষ পদ বাংলা সাহিত্যে বিরল । এই সব পদে জীবনের এমন গভীর উপলব্ধির কথা মধ্যযুগের আর কারও কাব্যের মধ্যে পাওয়া যায় না ।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন